ব্যবসায়ী প্রতিষ্ঠানের ভ্যাট নিবন্ধন অনলাইনে…

বাংলানিউজ ইউকে ডটকমঃ হয়রানি ও ঝামেলামুক্ত পরিবেশে ব্যবসায় কার্যক্রম আরো সহজভাবে পরিচালনার উদ্দেশ্য জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এনবিআর) ব্যবসায়ী প্রতিষ্ঠানের জন্য অনলাইনে ভ্যাট নিবন্ধন ব্যবস্থা চালু করেছে।

মঙ্গলবার এই পদ্ধতির আওতায় (৪ মাস) সারাদেশে ৩১ হাজার ৩৩১টি ব্যবসায় প্রতিষ্ঠান অনলাইনে ইলেকট্রনিক বিজনেস আইডেনটিফিকেশন নম্বর (ই-বিআইএন) গ্রহণ করেছে। এসব প্রতিষ্ঠানের কাছ থেকে ভ্যাট রাজস্ব আয়ের ৯০ শতাংশেরও বেশি আসে।

গত ১৫ মার্চ থেকে অনলাইনে ভ্যাট নিবন্ধন শুরু হয়। অনলাইনে ভ্যাট নিবন্ধনের পুরো কার্যক্রম দেখভাল করছে ভ্যাট অনলাইন প্রকল্প।

এ বিষয়ে ভ্যাট অনলাইন প্রকল্পের প্রকল্প পরিচালক ও সদস্য (কাস্টমস্ ও ভ্যাট প্রশাসন) মো. রেজাউল হাসান  বলেন, সম্পূর্ণ হয়রানিমুক্ত পরিবেশে ব্যবসায়ীরা যাতে সহজ পদ্ধতিতে ব্যবসা পরিচালনা করতে পারেন, এজন্য অনলাইনে ভ্যাট নিবন্ধন দেওয়া হচ্ছে। এতে পুনঃনিবন্ধনের পাশাপাশি নতুন নিবন্ধনও নিচ্ছে ব্যবসায়ীরা।

আগামী ১ জুলাই থেকে বাস্তবায়ন হতে যাওয়া মূল্য সংযোজন কর (ভ্যাট) ও সম্পূরক শুল্ক আইন, ২০১২ এর আওতায় ই-বিআইএন ছাড়া কোন প্রতিষ্ঠান আমদানি-রফতানিসহ অন্যান্য ব্যবসায় কার্যক্রম পরিচালনা করতে পারবে না। এজন্য ৯ ডিজিটের নতুন ই-বিআইএন নম্বর ৩৬ লাখ টাকার ওপরে বার্ষিক লেনদেন হয়, এমন সব ব্যবসায়ীর জন্য বাধ্যতামূলক করা হয়েছে।

রেজাউল হাসান জানান, ১৫ মার্চ থেকে অনলাইন নিবন্ধন পদ্ধতি চালু হওয়ার পর আজ পর্যন্ত ৩১ হাজার ৩৩১ টি ব্যবসায় প্রতিষ্ঠান ই-বিআইএন নম্বর গ্রহণ করেছে। এই প্রতিষ্ঠানসমূহের কাছ থেকে মোট ভ্যাট রাজস্ব আয়ের ৯০ শতাংশেরও বেশি পাওয়া যায় বলে তিনি উল্লেখ করেন।

তিনি আরো বলেন, প্রথম দিকে অনলাইনে নিবন্ধন গ্রহণের সংখ্যা খুব কম ছিল। তবে ধীরে ধীরে এই অবস্থার পরিবর্তন হয়েছে। বর্তমানে দৈনিক ই-বিআইএন গ্রহণের সংখ্যা ২ হাজারেরও বেশি। যেসব প্রতিষ্ঠান এখনও নিবন্ধন বা পুনঃনিবন্ধন করেনি, তাদেরকে দ্রুত নিবন্ধন নেওয়ার আহবান জানান তিনি।

উল্লেখ্য, সনাতনী পদ্ধতিতে নিবন্ধন নেওয়া আছে, এমন প্রতিষ্ঠানসমূহ আগামী ৩০ জুন পর্যন্ত পুনঃনিবন্ধন গ্রহণের সুযোগ পাবেন। তবে নতুন নিবন্ধন নেওয়ার প্রক্রিয়া অব্যাহত থাকবে।

রেজাউল হাসান বলেন, ভ্যাট আইন-১৯৯১ এর আওতায় বর্তমানে ৮ লাখ নিবন্ধন রয়েছে। তবে অনলাইনে নিবন্ধন পদ্ধতি চালু হওয়ায় এর সংখ্যা বিপুল পরিমাণ কমে আসবে। কারণ আগে একটি প্রতিষ্ঠানকে আলাদা আলাদাভাবে নিবন্ধন নিতে হতো। এখন একটি ই-বিআইএন নম্বরে চলবে। এক্ষেত্রে তিনি বাটা সু’র উদাহরন দিয়ে বলেন, তাদের ৩ হাজার নিবন্ধন ছিল। নতুন ভ্যাট আইনে তাদের একটি মাত্র ই-বিআইএন নম্বর থাকবে।

উল্লেখ্য, অনলাইনে সেবা নেওয়ার জন্য ভ্যাট নিবন্ধন বা ই-বিআইএন নেওয়ার বিষয়টি অনেকটা অনলাইনে কর শনাক্তকরণ নম্বর বা ই-টিআইএনের মতো। এরই মধ্যে যেসব প্রতিষ্ঠানের সনাতনী পদ্ধতিতে নিবন্ধন নেওয়া আছে, সেসব প্রতিষ্ঠানকে এখন নতুন করে অনলাইনে পুন:নিবন্ধন নিতে হবে। বছরে ৩৬ লাখ টাকার কম লেনদেন হয় এমন প্রতিষ্ঠান এর বাইরে থাকবে। বার্ষিক লেনদেন ৩৬ লাখ টাকার বেশি হলেই কেবল অনলাইনে নিবন্ধন নিতে হবে। ভ্যাট নিবন্ধন ওয়েবসাইটের ঠিকানা ঠধঃ.মড়া.নফ।

উল্লেখ্য, আগামী ১ জুলাই থেকে নতুন ভ্যাট আইন কার্যকর হচ্ছে। তখন অনলাইনেই ব্যবসা প্রতিষ্ঠানগুলোর রিটার্ন জমা ও কর পরিশোধসহ অন্যান্য আনুষঙ্গিক কাজ করতে হবে।

শেয়ার করুন