শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তির নিয়মাবলী

বাংলা নিউজ ইউকে ডটকমঃ তরুণ প্রজন্মের স্বপ্নের বিশ্ববিদ্যালয় সিলেটের শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়। উচ্চ শিক্ষা গ্রহণে মেধাবীদের চাহিদার শীর্ষে থাকে এই বিশ্ববিদ্যালয়টি। উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষায় উত্তির্ণ হওয়ার পর লাখো শিক্ষার্থীর সাথে ভর্তি যুদ্ধে অবতীর্ণ হতে হয়। ভর্তি পরীক্ষায় মেধা তালিকায় উত্তির্ণ হলেই ভর্তি নিশ্চিত করা সম্ভব স্বপ্নের এই বিশ্ববিদ্যালয়ে। বিশ্ববিদ্যালয়ে ২৭ টি বিভাগে এক হাজার ৫২৩টি আসন রয়েছে।

১৯৯১ সালে যাত্রা শুরু করা এই বিশ্ববিদ্যালয়টি অতি অল্প সময়ে শিক্ষা গবেষণায় দেশের শীর্ষ বিশ্ববিদ্যালয়ের মর্যাদা লাভ করেছে। তুলনামূল ভাবে এই বিশ্ববিদ্যালয়টি এখনও নবীন। কিন্তু নবীন হলে কি হবে, এই অল্প সময়ে বেশি অর্জন বিশ্ববিদ্যালয়টির। বর্তমান ভাইস চ্যান্সেলর প্রফেসর ড. মো. আমিনুল হক ভূইয়ার দক্ষ নেতৃত্ব ও পরিচালনায় বিগত ৪ বছরের মধ্যে ২ বারই দেশের শীর্ষ বিশ্ববিদ্যালয়ের মর্যাদা লাভ করেছে। আর বিশ্ব র‌্যাংকিংয়ে শাবির অবস্থান ৬১০ ও দেশে প্রথম।

এই বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়তে চাইলে উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষার পর কঠোর অধ্যবসায় করতে হবে। নিয়মিত অনুশীলন আর বেসিক জ্ঞান থাকলে চান্স পাওয়া সম্ভব। এই বিশ্ববিদ্যালয়ের ইঞ্জিনিয়িারিং বিষয়ের চাহিদা শীর্ষে রয়েছে। ২০১৭-১৮ শিক্ষা বর্ষের পরীক্ষা আগামী নভেম্বরে অনুষ্ঠিত হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। তবে সিলেবাসে কিংবা আবদেনর যোগ্যতায় কোন পরিবর্তন আসবে কি না, চলতি মাসের শেষের দিকে অথবা আগস্টে একাডেমিক কাউন্সিলের সভার পর এই তথ্য জানা যাবে। শাবিতে চান্স পেতে হলে মান বন্টণ অনুযায়ী অনুশীলন করতে হবে। এই বিশ^বিদ্যালয়ের প্রশ্ন সবসময় ব্যতিক্রম হয়ে থাকে। বেসিক বিষয়ের উপর প্রশ্ন হয়ে থাকে। এজন্য গণিত, ইংরেজি ও বিজ্ঞানের বিভিন্ন বিষয়ের বেসিক বিষয়গুলো জানতে হবে।

এ ইউনিটের আসন সংখ্যা : এ ইউনিটের (বিজ্ঞান+মানবিক+বাণিজ্য) ব্যবসা প্রশাসন বিভাগের আসন সংখ্যা ৩০+১০+৩৫=৭৫, অর্থনীতি বিভাগে ৪০+২০+৬=৬৬, নৃবিজ্ঞান বিভাগে ২০+৪০+৬=৬৬, লোক প্রশাসন বিভাগে ২০+৪০+৬=৬৬, ইংরেজী বিভাগে ৩০+৩৫+৬=৭১, বাংলা বিভাগে ৫+৬০+৬=৭১, পলিটিক্যাল স্টাডিস বিভাগে ২০+৪০+৬=৬৬, সমাজবিজ্ঞান বিভাগে ৩০+৩০+৬=৬৬ ও সমাজকর্ম বিভাগে ২৫+৩৫+৬=৬৬। এ ইউনিটে মোট আসন সংখ্যা রয়েছে ৬১৩টি।

২০১৬-১৭ সালের তথ্য অনুযায়ী মানবন্টন ও আবেদনের নূন্যতম যোগ্যতা : ২০১৬ অথবা ২০১৭ সালে অনুষ্ঠিত এইচএসসি (সাধারণ ও কারিগরি) / আলিম /ডিপ্লোমা-ইন-কমার্স / সমমান এবং ২০১৪ অথবা ২০১৫ সালে অনুষ্ঠিত এসএসসি (সাধারণ ও কারিগরি)/দাখিল বা সমমান পরীক্ষাতে উত্তীর্ণ ছাত্র-ছাত্রীরা কেবলমাত্র নূন্যতম যোগ্যতা থাকা সাপেক্ষে আবেদন করতে পারবে।

বিজ্ঞান বিভাগ : মাধ্যমিক ও উচ্চমাধ্যমিক পরীক্ষায় পৃথক ভাবে নূন্যতম জিপিএ ৩.০০ সহ নূন্যতম মোট জিপিএ ৭.০০ থাকতে হবে।

মানবিক ও বাণিজ্য বিভাগ : মাধ্যমিক ও উচ্চমাধ্যমিক পরীক্ষায় পৃথক ভাবে নূন্যতম জিপিএ ৩.০০ সহ মোট নূন্যতম ৬.৫০ থাকতে হবে।

বিষয়ভভিত্তিক যোগ্যতা : একটি নির্দিষ্ট বিভাগে ভর্তি হওয়ার জন্য সংশ্লিষ্ট বিষয়ে উচ্চমাধ্যমিক বা সমমানের পরীক্ষায় নূন্যতম জিপিএ ৩.৫০ থাকতে হবে। সমাজ বিজ্ঞান, সমাজকর্ম, লোক প্রশাসন, পলিটিক্যাল স্টাডিজ ও নৃবজ্ঞিানে ভর্তি হতে হলে উচ্চ মাধ্যমিকে সমাজবিজ্ঞান বা পৌরনীতি বা যুক্তিবিদ্যা বা অর্থনীতি বা সমাজকল্যাণ বা বাণিজ্যিক ভূগোল বা ইংরেজী অথবা বাণিজ্য বা বিজ্ঞান শাখার যেকোন বিষয় থাকতে হবে। অর্থনীতি বিভাগে ভর্তি হতে চাইলে উচ্চ মাধ্যমিকে অর্থনীতি বা গণিত বা পরিসংখ্যান বা বাণিজ্যিক ভূগোল বিষয় থাকতে হবে। ব্যবসা প্রশাসন বিভাগে ভর্তি হতে চাইলে উচ্চ মাধ্যমিকে অর্থনীতি বা গণিত বা পরিসংখ্যান বা ইংরেজী অথবা বিজ্ঞান বা বাণিজ্য শাখার যেকোন বিষয় থাকতে হবে। আর ইংরেজি ও বাংলা বিভাগে ভর্তি হতে চাইলে উচ্চ মাধ্যমিকে এই বিষয় থাকতে হবে।

এ ইউনিটের পরীক্ষার মানবন্টন : বিজ্ঞান শাখা : ইংরেজী ২০, বাংলা ১০, পদার্থবিজ্ঞান -১০, রসায়ন ১০, গণিত/জীববিজ্ঞান ১০, বাংলাদেশ ও আন্তর্জাতিক প্রসঙ্গ ১০। বাণিজ্য শাখা : ইংরেজী ২০, বাংলা ১০, হিসাববিজ্ঞান, ব্যবসায় নীতি ও প্রয়োগ এবং বাংলাদেশ ও আন্তর্জাতিক প্রসঙ্গ ৩০, মাধ্যমিক পর্যায়ের সাধারণ গণিত ১০। মানবিক শাখা : ইংরেজী ২০, বাংলা ১০, অর্থনীতি, পৌরনীতি, যুক্তিবিদ্যা, সমাজবিজ্ঞান, সমাজকল্যাণ, ইতিহাস এবং ইসলামের ইতিহাস সংক্রান্ত প্রশ্নাবলি, বাংলাদেশ ও আন্তর্জাতিক প্রসঙ্গ ৩০ এবং মাধ্যমিক পর্যায়ের সাধারণ গণিত ১০। পরীক্ষার সময় ১ ঘন্টা ৩০ মিনিট।

বি ইউনিটের আসন সংখ্যা : বি ইউনিট গ্রুপ-১ : কম্পিউটার সায়েন্স এন্ড ইঞ্জিনিয়ারিং ১০০, সফটওয়্যার ইঞ্জিনিয়ারিং ৩০, ইলেকট্রিক্যাল এন্ড ইলেকট্রনিক ইঞ্জিনিয়ারিং ৫০, মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং ৩৫, ইন্ড্রাস্ট্রিয়াল এন্ড প্রোডাকশন ইঞ্জিনিয়ারিং ৫০, কেমিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং এন্ড পলিমার সায়েন্স ৫০, সিভিল এন্ড এনভায়রনমেন্টাল ইঞ্জিনিয়ারিং ৫০, পেট্রোলিয়াম এন্ড মাইনিং ইঞ্জিনিয়ারিং ৩৫, ফুড ইঞ্জিনিয়ারিং এন্ড টি টেকনোলজি ৪০, পদার্থ বিজ্ঞান ৬৫, রসায়ন ৬৫, পরিসংখ্যান ৮০, গণিত ৮০, জেনেটিক ইঞ্জিনিয়ারিং এন্ড বায়োটেকনোলজি ৩৫, বায়োকেমিস্ট্রি এন্ড মলিকুলার বায়োলজি ৩০, ফরেস্ট্রী এন্ড এনভায়রনমেন্টাল সায়েন্স ৫৫ ও সমুদ্র বিজ্ঞানে ৩০টি আসন। গ্রুপ-২ এর আর্কিটেকচারে ৩০ টি আসন রয়েছে। এই ইউনিটে মোট আসন সংখ্যা ৯১০।
আবেদনের যোগ্যতা : মাধ্যমিক ও উচ্চমাধ্যমিক পরীক্ষায় পৃথক ভাবে নূন্যতম জিপিএ ৩.০০ সহ মোট নূন্যতম ৭.০০ থাকতে হবে। বিষয়ভভিত্তিক যোগ্যতা : একটি নির্দিষ্ট বিভাগে ভর্তি হওয়ার জন্য সংশ্লিষ্ট বিষয়ে উচ্চ মাধ্যমিক বা সমমানের পরীক্ষায় নূন্যতম জিপিএ ৩.৫০ থাকতে হবে।

পরীক্ষার মানবন্টন : বি ইউনিট গ্রুপ-১ : ইংরেজী ১০, পদার্থবিজ্ঞান ২০, রসায়ন ২০, গণিত ২০। মোট ৭০। সময় ১ ঘন্টা ৩০ মিনিট। বি ইউনিট গ্রুপ-২ এর পরীক্ষার মানবন্টন (গ্রুপ ১ এবং গ্রুপ ২ এর বিষয়গুলোর জন্য): ইংরেজী ১০, পদার্থবিজ্ঞান ২০, রসায়ন ২০, গণিত ২০, ড্রইং ও স্থাপত্য বিষয়ক সাধারন জ্ঞান ৩০। মোট – ১০০। সময়: ২ ঘন্টা ৩০ মিনিট। মেধাক্রম গণনা : মোট ১০০ নাম্বারে মেধাক্রম গণনা করা হবে। ৩০% আসবে জিপিএ হতে আর ৭০% আসবে ভর্তি পরীক্ষায় প্রাপ্ত নাম্বার হতে।

শেয়ার করুন