সুখ পাখিটা পোষ মানে না :: শহির আহমদ চৌধুরী

সুখ পাখিটা পোষ মানে না
গিয়েছে তাই উড়ে,
যেই গেল এলনা আর ফিরে
হৃদয়ের করিডোরে ।

দিবানিশি করলাম যতন
পাখিটার তরে,
এতো আদর সোহাগ দিলাম
গেলো তবু ছেড়ে ।

সোহাগ আদর হলো সতীন
পাখি হলো পর,
সে দিন থেকে দ্বীপ জ্বলেনা
অন্ধকার এই ঘর ।

দীর্ঘদিনের তপস্যা আমার
হলো আজ বৃথা
তুষেরআগুন জ্বলে বুকে
দেখে তার নিষ্ঠুরতা ।

সুখ পেয়েছে খুঁজে পাখি
অন্য কোথাও শান্তি,
তবে কেন ঘুচে না আমার
মিছে ভুল ভ্রান্তি?

আমি ভাবি পাখি আমার
থাকবে হৃদয় জুড়ে,
পুর্ণ খাঁচা বিরান করে
পাখি গেল উড়ে ।

সেই যে গেল হলনা আর
পাখির সাথে দেখা,
শোক বিলাপে প্রহর কাটে
প্রাণটা লাগে ফাঁকা ।

কোন ভাবুকের হয়ে ভাবুক
পাখি করে খেলা,
সেই ভাবুকের দেখা পেলে
হতাম তারই ছেলা ।

গুরু মেনে ধরতাম তারই
ঝাপটে দুটি হাত,
যে হাতের স্পর্শে এখন
পাখির কাটে রাত ।

বিনয় করে বলবো তারে
পাখি পোষার ছলাকলা-
শিখাও আমায় শিষ্য করে
খাওয়াব দুধ কলা ।

তন্ত্রমন্ত্র উপাসনায় আর
গেলো না পাখি ধরা,
ভজন সাধন বিফল হলো
বাড়লো জ্বালা পোড়া ।

দিব্যি যেথায় ছিল পাখির
নিত্য যাওয়া আসা,
এক শিকারির তীক্ষ নজরে
বিরান হলো সে বাসা ।

ইংল্যাণ্ড- ১৯/০৭/২০১৭

শেয়ার করুন