২০৪০ সালে কেমন হবে আগামী প্রজন্মের গাড়ি ?

বাংলা নিউজ ইউকে ডটকমঃ ২০৪০ সালের কেমন দেখতে হবে আগামী প্রজন্মের গাড়ি? কেমনই বা বৈশিষ্ট্যপূর্ণ হবে সেগুলো?

আগামীর গাড়িগুলোর ডিজাইনে যে আমূল পরিবর্তন হবে তাতে কোনো সন্দেহ নেই। বিশেষজ্ঞদের মতে ভবিষ্যতের এ গাড়িগুলো হবে স্বচালিত। কোনো চালক ছাড়া অনায়াসেই চলবে বৈদ্যুতিক এ গাড়িগুলো। এছাড়া আশা করা যায়, এগুলো হবে দুর্ঘটনা মুক্ত, শক্তিশালী ব্যাটারির এবং এর ভিতরকার ডিজাইন হবে আরো উন্নত এবং আরামদায়ক।

বিশ্বজুড়ে মোটরগাড়ি নির্মাতারা নতুন নতুন কিছু পছন্দ করবে। এছাড়া এ গাড়িগুলো চালাতে রোবোটের সাহায্য নিতে হবে। ভবিষ্যতের এ গাড়িগুলোর বৈশিষ্ট নিয়ে প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে দ্যা গার্ডয়ান।

গার্টনারের গবেষণা পরিচালক মাইক রামসে বলেন, ২০৪০ সালের গাড়িগুলো হবে এখনকার থেকে বিলাসবহুল। যারা সাধারণ যোগাযোগের জন্য গাড়ি ব্যবহার করবেন তারা গতিশীলতার দিকে নজর দিবেন।

তিনি বলেন, এটি হবে সব দিক দিয়ে সক্ষম, বিলাসবহুল এ গাড়িগুলোতে মুখোমুখি সিট থাকতে পারে বলেও মনে করেন তিনি। এছাড়া এখন যা মনে করা হচ্ছে তার চেয়েও অজানা অনেক পরিকল্পনা যোগ হবে বলেও মত দেন তিনি।

তখনকার প্রযুক্তি এখনকার চেয়ে বহুগুণ বেশি কার্যকর হবে জানিয়ে তিনি বলেন, ভার্চুয়াল সহযোগীতা বর্তমানের চেয়ে তখনকার সময়ে বহুগুণ বৃদ্ধি পাবে।

স্বপ্নের এসব গাড়ি নিয়ে পরিকল্পনা এবং গবেষণা পুরোদমে শুরু করেছে বিশ্বের বিভিন্ন গাড়ি নির্মাতা ও সেবাদাতা প্রতিষ্ঠান। তাদের মধ্যে রয়েছে, উবার, লিফ্ট ইত্যাদি।

এরই মধ্যে উড়ন্ত গাড়ি, চালকবিহীন গাড়ি এমনকি স্বচালিত জাহাজ নির্মাণের পরিকল্পনা শুরু করেছে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান। বিশ্বের সবচেয়ে আকর্ষণীয় গাড়ি নির্মাতা প্রতিষ্ঠানের একটি ‘ভলবো’ তাদের উড়ন্ত ও চালকবিহীন গাড়ি নির্মাণের বিষয়ে বেশ জোরেশোরেই কাজে নেমে পড়েছে।

এছাড়া, নরওয়ের দুই কোম্পানি ইয়ারা ইন্টারন্যাশনাল এএসএ এবং কৃষি সংস্থা কোংসবেরগ গ্রুপেন এএসএ ‘ইয়ারা বির্কল্যান্ড’ নামের চালকবিহীন জাহাজ নির্মাণের পরিকল্পনা হাতে নিয়েছে।

উল্লেখ্য, উড়ন্ত গাড়ি, স্বচালিত গাড়ি এবং স্বচালিত জাহাজ খুব দ্রুত বিশ্ব দেখলেও ২০৪০ সাল পর্যন্ত এসব প্রযুক্তি আরো অত্যাধুনিক, বিলাসবহুল ও আরামদায়ক হবে। এসব প্রযুক্তি যাতায়াত ও যোগাযোগ ব্যবস্থাকে বাড়িয়ে দেবে বহুগুণ।

শেয়ার করুন