সিলেটের বালাগঞ্জে পেয়াঁজের দাম লাগামহীন, বেকায়দায় জনসাধারণ!

এসএম হেলাল, সিলেট জেলা প্রতিনিধিঃ  পেয়াঁজের দাম লাগামহীন ভাবে বৃদ্ধি পাচ্ছে। প্রাকৃতির দূর্যোগের কারণে মানুষ যেখানে দিশেহারা। সেখানে হঠাৎ করে পেয়াঁজের দাম হুট করে বৃদ্ধি হওয়ার ফলে সীমাহীন ভুগান্তিতে পড়েছেন বালাগঞ্জের স্বল্প আয়ের শ্রমজীবি লোকজন। শুধু শ্রমজীবিরা নয়, দর বৃদ্ধির কারণে মধ্য আয়ের লোকজনও হিমসিম খাচ্ছেন এখন। জানা গেছে, গত প্রায় ১সাপ্তার ব্যবধানে স্থানীয় বাজার গুলোতে পেয়াজেঁর দাম কেজিতে ২৫ থেকে ৩০ টাকা বৃদ্ধি পেয়েছে। প্রাকৃতিক দূর্যোগের কারণে মানুষ যেখানে অসহায়। এমন পরিস্থিতিতে হতদরিদ্র পরিবার গুলো অনাহার অর্ধাহারে জীবন চলছে। সেখানে হঠাৎ পেয়াজের দাম বাড়ায় তাদের কষ্টের মাত্রাও বেড়ে গেছে। বর্তমান পরিস্থিতিতে সাধারণ মানুষ হিমসিম খেতে হচ্ছে। খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, উপজেলার ৬টি ইউনিয়নে বেশকয়েক হাজার পরিবারের বসবাস। এসব পরিবারের মধ্যে অধিকাংশই নিম্ন আয়ের।

দরিদ্র পরিবারের জন্য বর্তমান সরকারের বিভিন্ন কর্মসুচি চালু থাকলেও তা প্রয়োজনের তুলনায় অনেক কম। এতে করে সাধারণ মানুষের অসহনীয় কষ্টে রয়েছেন। এমতোবস্থায় জরুরী বিত্তিতে ব্যবস্থা গ্রহন খুবই জরুরী।

সরেজমিন আজ ১২ আগস্ট শনিবার উপজেলার বিভিন্ন হাট বাজার ঘুরে দেখা গেছে, উপজেলার পৈলনপুর ইউনিয়নের জালালপুর বাজারের পেয়াজঁ বিক্রি হচ্ছে প্রতি কেজি ৬০ টাকা, পশ্চিম গৌরীপুর ইউনিয়নের বাংলাবাজার ৫০টাকা, দেওয়ানবাজার ইউনিয়নের মাদ্রাসাবাজরে ৬০ টাকা, বোয়ালজুড় ইউনিয়নের কালিবাড়ী বাজারে বিক্রি হচ্ছে ৫৮ টাকা ও বালাগঞ্জ সদরে বিক্রি হচ্চে ৫০ টাকা। আগে যেখানে পেয়াজেঁর দাম ছিল প্রতি কেজি ২৫/৩০ টাকা পর্যন্ত। আলাপকালে দিন মজুর নজরুল ইসলাম বলেন, আমরার আর বাছার উপায় নাই, কাম কাজও ১দিন পাইলে ৩দিন বেকার থাকতে হয়।

চাউল’র শের ৯০ টেকা, হারা দিন কাম কইরা যে টেকা রুজি করি ই- টেকা চাউল আর ডাইল কিনলেউ শেষ অইযায়। বাদবাকি খরচ করার টেকা থাকে না। সেখানে পিয়াইজ লইতে লাগে ৬০ টেকা। মাছ বাজারও যাইবার শাওস করতাম পারি না। রিকশা চালক তসলিম, কৃষক ধন মিয়া, শ্রমিক ছফুর আলীসহ বেশ কয়েকজন জানান, চাল ও মাছের দামের বাড়ার কারণে যেখানে আমরা খাইয়া বাচা দায়, অখন আবার পিয়াইজ দাম যেভাবে বাড়ে‘র তাতে আমাদের মত গরিবদের না খেয়ে মরতে হবে।

এ ব্যাপারে আলাপকালে মাদ্রাসা বাজারের ব্যবসায়ী জুনেদ খান, জালালপুর বাজারের আসিক আলী, বালাগঞ্জ সদরের ব্যবসায়ি রিপন দাস জানান, পাইকারী বাজারে পিয়াঁজের সংকট দেখা দিয়েছে। আমরা ১ সাপ্তাহ আগে প্রতি কেজি যেখানে ২৫/৩০ টাকা করে বিক্রি করেছি। বর্তমানে আড়তে দর বাড়ায় আমরাও নিরুপায়।

বালাগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা প্রদীপ সিংহ বলেন, দেশব্যাপী এ সমস্যা বিরাজ করছে। প্রসাশনের পক্ষে থেকে শিগ্রই মনিটরিং এর মাধ্যমে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থ গ্রহন করা হবে।

শেয়ার করুন