জয়েন্ট ওয়ার্কিং গ্রুপ করে কোন লাভ হবে না : ব্যারিষ্টার মওদুদ

বাংলা নিউজ ইউকে ডটকমঃ বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিষ্টার মওদুদ আহমদ বলেছেন, সরকারের কূটনৈতিক ব্যর্থতার কারণেই রোহিঙ্গা অনুপ্রবেশ এখনও চলছে। এমনতেই আমরা একটা মার্জিনাল ইকোনোমিক ষ্টেট (প্রান্তিক অর্থনৈতিক রাষ্ট্র), এর মধ্যে আমাদের মধ্যে আবার রয়েছে মানবতাবোধ, রোহিঙ্গাদের সেবা, দেখাশুনার ব্যবস্থা করেছি আমরা, আমরা তো একটা মানবেক জাতি কিন্তু তাদের অনুপ্রবেশ তো বন্ধ করতে হবে।

আজ শুক্রবার দুপুরে জাতীয় প্রেসক্লাবের ভিআইপি লাউঞ্জে এক গোলটেবিল আলোচনায় তিনি এসব বলেন, ‘চলমান সংকটের সমাধান কোন পথে’ শীর্ষক এই সভার আয়োজন করে ডেমোক্রেটিক মুভমেন্ট।

তিনি বলেন, জয়েন্ট ওয়ার্কিং গ্রুপ করে কোন লাভ হবে না। জাতিসংঘকে সরাসরি জড়িত করতে হবে। রোহিঙ্গা শরণার্থীদের মধ্যে যারা উগ্রবাদি আছে তারা নৈরাজ্য করতে পারে, এ অবস্থায় তারা একটা সুযোগ নিতে পারে। একদিকে তাদের সেবা করবো অন্যদিকে তাদের ফেরত পাঠানোর ব্যবস্থা করতে হবে।

রোহিঙ্গা সংকট দলীয় সংকট নয় এটা একটা জাতীয় সংকট উল্লেখ করে মওদুদ আরো বলেন, সরকার সবসময় মনে করে তাদের দলীয় সংকট। এই সংকট মোকাবেলা করা আমরা মনে করি সরকার এককভাবে চেষ্টায় ব্যর্থ, সরকারীদল ও সরকারী দলের বাইরে আরো যত দল আছে তাদের সাথে আলোচনার প্রচেষ্টা নিলে আর্ন্তজাতিক সমর্থণ আরো বেশি পাবে কিন্তু সরকার আর্ন্তজাতিকভাবে বোঝাতে পারছেন না কারণ তারা(আর্ন্তজাতিক বিশ্ব) জানে যে আপনারা দুর্বল, তারা জানে যে আপনারা নির্বাচিত সরকার নন। এই দুর্বলতার কারণেই কিন্তু আজকে এই কূটনৈতিক ব্যর্থতা, কূটনৈতিক ব্যর্থতার মূল হলো এই বর্তমান সরকারের আসল যে শক্তি, সেই শক্তি তাদের নাই বলেই তারা ব্যর্থ, সেই শক্তি হলো দেশের জনগণ, তাই দেশের জনগণকে ঐক্যবদ্ধ করুন, আসুন আমরা সহযোগিতা করবো, এই সংকট সমাধানের জন্য সবাই ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করি।

প্রধান বিচারপতির বিরুদ্ধে নালিশের প্রধান একটা কারণ হলো, তিনি বলেছিলেন যে, দেশের স্বাধীণতা একজনের জন্য হয়নি, সকল মানুষের জন্য হয়েছে। এজন্যই এত বিদ্বেষ, এত ক্ষোভ। দাবি করে তিনি বলেন, আজকে এই যে সংকট, গণতন্ত্র দেশে নেই, এর পরিবর্তে যদি দেখতাম রাজনীতি আছে, গণতন্ত্র আছে। কেন আমরা এই ভাষা আন্দোলন, শিক্ষা আন্দোলন, গণ-অভ্যুত্থাণ, আগরতলা ষড়যন্ত্র মামলা আন্দোলণ আর মুক্তিযুদ্ধ করলাম, কেন করেছি? একটা বিরাট আশা নিয়ে করেছিলাম যে, দেশ প্রাণচঞ্চল থাকবে, মৌলিক অধিকার থাকবে, কার্যকর একটা সংসদ থাকবে।

গোলটেবিল বৈঠকে আরো উপস্থিত ছিলেন, বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান বরকত উল্লাহ বুলু, ডেমোক্রেটিক মুভমেন্টের সভাপতি শাহাদাত হোসেন সেলিমসহ অন্যান্য নেতৃবৃন্দ।

শেয়ার করুন