খুলনায়ভোটের দিন আদালতে বিএনপি নেতারা

ঘড়ির কাঁটা সকাল আটটা বাজার সঙ্গে সঙ্গে মেয়র ও ৪১ জন কাউন্সিলর নির্বাচনে ভোটগ্রহণ শুরু হয়েছে খুলনায়। জাতীয় নির্বাচনের আগে এই নির্বাচন সরকার ও নির্বাচন কমিশনের (ইসি) কাছে অন্যতম চ্যালেঞ্জ। তবে দেশের অন্যতম রাজনৈতিক দল বিএনপির কাছে দলটির নেত্রীর জামিন প্রাপ্তি খুলনার ভোট ছাপিয়েও যেন অধিক গুরুত্বের।

মঙ্গলবার সকালে খুলনায় যখন ভোট চলছে, বিএনপির পল্টন কার্যালয়ে তখন সুনশান নীরবতা বিরাজ করছে। অন্যান্য ভোটের দিনগুলোর প্রথম প্রহরে কার্যালয়টি থাকতো উৎসবমুখর, নেতাকর্মীতে ভরপুর। কিন্তু আজকের দিনটি ব্যতিক্রম।

জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে হাইকোর্টের দেওয়া জামিন বহাল থাকবে কি না তা জানা যাবে আজ। আর কারাবন্দি নেত্রীর মুক্তির দাবিতে দলের সকল শীর্ষ নেতারা রয়েছেন আদালতে। বিএনপি কার্যালয় সূত্রে এমনটিই জানা গেছে।

দুর্নীতির মামলায় হাইকোর্টের জামিনাদেশের বিরুদ্ধে দুদক ও রাষ্ট্রপক্ষের আপিলের ওপর মঙ্গলবার আদেশ দেবেন প্রধান বিচারপতির নেতৃত্বে চার বিচারপতির আপিল বেঞ্চ।

গত বুধবার দ্বিতীয় দিনের মতো শুনানি শেষে প্রধান বিচারপতির নেতৃত্বে চার বিচারপতির আপিল বেঞ্চে আদেশ দেয়ার জন্য আজকের (১৫মে) তারিখ ধার্য করেন।

এদিকে সকাল সাড়ে সাতটা থেকেই বিএনপির পল্টন কার্যালয়ের সামনের ফটকে একটি সাজোয়া যান ও জলকামান লক্ষ্য করা গেছে। একই সঙ্গে আনুমানিক ৪০ জনের ওপর পুলিশও লক্ষ্য করা গেছে কার্যালয়টির আশপাশে।

এই এলাকায় দায়িত্বে থাকা রমনা থানার ওসি মাহমুদুল হক বলেন, ‘নির্বাচন বলেন কিংবা আদালতের বিষয় বলেন, আমরা চাই কোনও বিশৃঙ্খলা না হোক। কোনও কারণেই যেনো সড়ক অবরোধ না হয় তাই আমরা এখানে শুধু অবস্থান নিয়েছে।’

তবে পুলিশের এই অবস্থান দেখে বিএনপি নেতাকর্মীদের চিন্তিত না হওয়ার পরামর্শ দেন এই পুলিশ কর্মকর্তা। বলেন, ‘পুলিশের পক্ষ থেকেএমন কোনও পদক্ষেপ নেয়া হবে না যেটাতে বিশৃঙ্খলার সৃষ্টি হয়।’

শেয়ার করুন